সোমবার, ১৫ জুলাই, ২০২৪, ৩১ আষাঢ়, ১৪৩১

অনিয়মের চিত্র ধারণ

মুন্সিগঞ্জে ভোটকেন্দ্রে সাংবাদিককে মারধর, ক্যামেরা ভাঙচুর

মুন্সিগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার আড়িয়ল ইউনিয়ন পরিষদ উপনির্বাচনে অনিয়মের চিত্র ধারণ করতে গিয়ে প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের হামলায় আহত হয়েছেন সাংবাদিক। এ ঘটনায় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ২৪ এর চিত্র সাংবাদিক আমির হোসাইন (২৮) আহত হয়েছেন, ভাঙচুর করা হয়েছে তার ক্যামেরা। ওই নির্বাচনে আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী দুলাল হাওলাদার এই হামলার সূত্রপাত করেন বলে অভিযোগ।

রোববার (২৮ এপ্রিল) দুপুর আড়াইটার দিকে ইউনিয়নটির উত্তর কুরমিরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। আহত আমির বর্তমানে মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আহত সাংবাদিক আমির হোসেন জানান, সকাল থেকেই প্রতিটি কেন্দ্রে আমরা চিত্র ধারণ করছিলাম। দুপুরে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বশির আহমেদ ওই কেন্দ্রটি পরিদর্শনে আসেন। কেন্দ্রে যাওয়ার পর জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জাল ভোট দেওয়ার সময় একজন নারীকে হাতেনাতে আটক করেন। সেই ছবি নেওয়ার সময় পাশ থেকে আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী দুলাল হাওলাদার প্রথমে আমাকে বাধা দেন এবং পরে ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি আমাকে মারতে তেড়ে আসেন।

এরপর নির্বাচন কর্মকর্তা কেন্দ্র ত্যাগ করার সঙ্গে সঙ্গে ১০০-২০০ লোক কেন্দ্র দখল করার উদ্দেশ্যে কেন্দ্রে ঢুকে পড়েন। আমি সেই চিত্র ধারণ করতে থাকলে চেয়ারম্যান প্রার্থী দুলাল চিৎকার চেচামেচি করে আমাকে মারধর শুরু করেন। এ সময় তার সঙ্গে থাকা ২০-৫০ জন মিলে আমার হাতে থাকা ক্যামেরা ভাঙচুর করে এবং আমার মাথায় কিল-ঘুষি দেয় এবং লাঠি দিয়ে গুরুতর আঘাত করে আমাকে অজ্ঞান করে ফেলে রেখে যায়। খবর পেয়ে আমার অন্য সহকর্মীরা উদ্ধার করে আমাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

মুন্সিগঞ্জে ভোটকেন্দ্রে সাংবাদিককে মারধর, ক্যামেরা ভাঙচুর

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বশির আহমেদ হামলার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি ওই কেন্দ্র থেকে বের হওয়ার পর ভোটকেন্দ্রের বাইরে আমার চোখের সামনে সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। তবে ভোটকেন্দ্রে এর প্রভাব পড়েনি। এ ঘটনায় আইন মোতাবেক ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন।

টঙ্গীবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক কানিজ ফাতেমা জানান, আহতের মাথার পেছনে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে দুলাল হাওলাদারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। মুন্সিগঞ্জ পুলিশ সুপার আসলাম খান বলেন, এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ পেয়েছি। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে এ ঘটনায় রাত ৮টায় আহত চিত্র সাংবাদিক আমির হোসেনকে দেখতে মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে যান জেলা প্রশাসক আবু জাফর রিপন। হামলার ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন তিনি।

Join Manab Kallyan