রবিবার, ১৪ জুলাই, ২০২৪, ৩০ আষাঢ়, ১৪৩১

থ্রি-জি সেবা বন্ধ করলো বাংলালিংক

দেশজুড়ে দ্রুতগতির ফোর-জি নেটওয়ার্কের গুণগতমান ও গতি আরও বৃদ্ধি করতে দেশের অন্যতম উদ্ভাবনী ডিজিটাল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বাংলালিংক তাদের থ্রি-জি সেবা বন্ধ করে দিয়েছে। এর ফলে ফোর-জি নেটওয়ার্কের আরও বেশি তরঙ্গসহ অন্যান্য রিসোর্স বরাদ্দ করতে পারবে অপারেটরটি।

৫ মে দেশের প্রথম মোবাইল নেটওয়ার্ক অপারেটর হিসেবে বাংলালিংক দেশব্যাপী থ্রি-জি সেবা বন্ধ করে দেয়। এই কৌশলগত পদক্ষেপ ‘সবার জন্য সেরা ফোর-জি’ নেটওয়ার্ক নিশ্চিত করতে বাংলালিংক-এর একনিষ্ঠ প্রতিশ্রুতিরই প্রতিফলন। একই সাথে এটি সারা দেশে চলমান ডিজিটালাইজেশন কার্যক্রমের ক্ষেত্রে অপারেটরটির নেতৃত্বকে আরও সুদৃঢ় করবে।

ফোর-জি প্রযুক্তিকে আরও উন্নত করার লক্ষ্যে এই যুগোপযোগী রূপান্তর গ্রাহকদের জন্য বাংলালিংকের ইন্টারনেটের উচ্চতর গতি, নির্ভরযোগ্যতা ও সহজলভ্যতার প্রতিশ্রুতিকেই ধারণ করে।

গ্রাহক-কেন্দ্রিক অপারেটর হিসেবে, বাংলালিংক বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ধারাবাহিকভাবে উন্নত ফোর-জি সেবা গ্রহণ ও ২০২১ সাল থেকে পর্যায়ক্রমে থ্রি-জি সেবা বন্ধ করার বিষয়টিকে সবচেয়ে বেশি গুরত্ব দিয়েছে। এই কৌশলগত সিদ্ধান্তটি বাংলালিংক-এর মূল কোম্পানি ভিওন কর্তৃক সমর্থিত। এছাড়া ভিওন পরিচালিত বিশ্বের অন্যান্য দেশের সাথেও এটি সংগতিপূর্ণ।

এছাড়াও চলমান নেটওয়ার্ক আধুনিকীকরণ ও সম্প্রসারণের অংশ হিসাবে সম্প্রতি বাংলালিংক সংশ্লিষ্ট খাতের শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি কোম্পানিগুলির সঙ্গে বেশ কয়েকটি নতুন চুক্তি সম্পাদনের ঘোষণা দিয়েছে। এই চুক্তিগুলোর ফলে টানা চার বছর ওকলা স্পিডটেস্ট অ্যাওয়ার্ড কর্তৃক স্বীকৃত দেশের দ্রুততম নেটওয়ার্ক- বাংলালিংক-এর ফোর-জি নেটওয়ার্ককে দেশব্যাপী আরও বেশি গ্রাহকদের নিকট পৌঁছে দিতে পারবে।

বাংলালিংক-এর সিইও এরিক অস বলেন, ডিজিটাল অপারেটর হিসেবে আমাদের লক্ষ্য হলো গ্রাহকদের নিরবিচ্ছিন্ন সংযোগ ও উদ্ভাবনী সেবা দেওয়া। ফোর-জি-এর জন্য বরাদ্দকৃত তরঙ্গসহ অন্যান্য রিসোর্স আরও বাড়িয়ে, আমরা গ্রাহক অভিজ্ঞতাকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাব। এই সফল রূপান্তরের পথপ্রদর্শক হিসাবে, আমরা আমাদের গ্রাহকদের ফোর-জি অভিজ্ঞতা বাড়িয়ে উচ্চগতি সম্পন্ন ও আধুনিক অবকাঠামো এবং সর্বোপরি অত্যাধুনিক ডিজিটাল সেবাগুলির সাথে সমন্বয়ের মাধ্যমে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ এর দিকে বাংলালিংক-এর একনিষ্ঠ যাত্রাকে ত্বরান্বিত করতে সচেষ্ট আছি।

সম্প্রতি, বাংলালিংক সারা দেশে উচ্চতর গতি ও কভারেজ নিশ্চিত করতে এর নেটওয়ার্ক সক্ষমতা দ্বিগুণ করেছে। উন্নত নেটওয়ার্ক ও অত্যাধুনিক স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম টফি-এর মাধ্যমে, কোম্পানিটি ২০২৪ ও ২০২৫ সালে অনুষ্ঠিতব্য ছয়টি আইসিসি ইভেন্ট বিশেষভাবে সম্প্রচার করবে যেখানে বিশটি দেশের অংশগ্রহণে পুরুষদের একাত্তরটি ম্যাচ ও নারীদের পঁচানব্বইটি খেলা দেখানো হবে।

Join Manab Kallyan